1. admin@dailygrambangla.com : admin :
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৪:০৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সোনারগাঁয়ে ডাকাত মনুর মাদক সাম্রাজ্য, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা  সোনারগাঁয়ে সুতা ব্যবসায়ীকে প্রাণনাশের হুমকি থানায় অভিযোগ সংবাদ প্রচার করায় শীর্ষ সন্ত্রাসী পরিচয়ে সাংবাদিককে মেরেফেলার হুমকি সোনারগাঁয়ে মামলার স্বাক্ষীকে প্রাণ নাশের হুমকি নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি বেড়ায় আশনা এনজিও কর্তৃক অবহেলিত নারীদের আইটি প্রশিক্ষণ শুভ উদ্বোধন আশনা এনজিও সহযোগিতায় বৃক্ষরোপন ও চারা বিতরণ কর্মসূচি উদ্বোধন সোনারগাঁয়ে উপজেলা পরিষদে দায়িত্ব ভার গ্রহণ করলেন নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানের মাহফুজুর রহমান কালাম বেড়ায় আওয়ামী লীগের ৭৫ বছর পূর্তি প্লাটিনাম জয়ন্তী পালন সোনারগাঁয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনে আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন দয়াল নগর বাহারুন্নেসা পাবলিক লাইব্রেরির ও বিকে ফাউন্ডেশনের বিনামূল্যে চক্ষু অপারেশন ক্যাম্প

নির্মাণের ১৯ বছর পরেও হয়নি সংস্কার, ঝুঁকিপূর্ণ সেতু দিয়েই পথ চলছে ৫ গ্রামের মানুষ

  • আপডেট : বুধবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২৩
  • ১৩২ বার পঠিত

নাজমুল হাসান-মাদারীপুর প্রতিনিধি:

মাদারীপুরের ডাসার উপজেলায় ২০০৪ সালে নির্মিত হওয়া সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ হলেও নেই সংস্কারের কোনো উদ্যোগ।তাই,বাধ্য হয়ে ভাঙা সেতু দিয়েই ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে পথচারীদের। সব সময় ভয়ে থাকতে হয় কখন যেন ঘটে যায় দুর্ঘটনা। পাঁচটি গ্রামের স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীর চলাচলের একমাত্র মাধ্যম এ সেতু।ওই স্থানে নতুন সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

উপজেলার নবগ্রাম ইউনিয়নের উত্তর চলবল গ্রামের তুরন রঞ্জন হাওলাদারের বাড়ির সংলগ্ন নবগ্রাম রামশীল খালের উপর কারিতাস নামে একটি সংস্থা ২০০৪ সালে নির্মিত করেছিল সেতুটি।

জানা যায়, সেতুটির বড় অংশ ভেঙে গিয়ে রডগুলো বের হয়ে আছে।তাও মরিচা পড়ে খয়ে খয়ে পড়ছে। এর ওপর দিয়েই প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসী। শুধু ভেঙে যাওয়া অংশই নয় পুরো সেতুটি এখন ঝুঁকিপূর্ণ। এ সেতু পার হয়েই শিক্ষার্থীদের আশপাশের স্কুল কলেজে যেতে হয়। বেশি বিপাকে পড়তে হয় স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের। ঝুঁকি নিয়ে সেতু পার হয়ে ডাসার উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে হচ্ছে তাদের। হাটবাজারে কৃষিপণ্য আনা-নেওয়া করতে হয় এভাবেই ঝুঁকি নিয়ে। এ অবস্থায় উত্তর চলবল, দক্ষিণ চলবলসহ আশপাশের প্রায় পাঁচটি গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ চরমে।

এলাকাবাসী বলেন, সেতুটি ২০০৪ সালে কারিতাস নামে একটি সংস্থা নির্মাণ করেছিল। এ সেতু দিয়ে পাঁচটি গ্রামের মানুষ চলাফেরা করে। বেশি সমস্যা হয় শিক্ষার্থীদের। সেতুতে উঠলে মনে হয় এই বুঝি ভেঙে পড়লাম। নবগ্রাম ইউনিয়নের উত্তর চলবল ও দক্ষিণ চলবলের মানুষ বেশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। যেমন রাস্তাঘাটের সমস্যা তেমনি সেতুর সমস্যা। ভাঙা সেতুর কারণে কোনো যানবাহনও আসছে না এ রাস্তায়। তাই কেউ অসুস্থ হলে কাঁধে করেই নিয়ে চলতে হয় দুই তিন মাইল। আমরা স্থানীয় জনপ্রতিধিদের কাছে বার বার ধরনা দিয়ে কাজ হয়নি।

নবগ্রাম ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বিভূতি ভূষন বাড়ৈ বলেন, আমি চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় মশিনবাড়ি, তুরান রঞ্জনবাড়ি সংলগ্ন নবগ্রাম রামশীল খালসহ তিনটি সেতু প্রয়োজন জানিয়ে এলজিইডির কর্মকর্তাকে কয়েকবার জানিয়েছি।

বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান দুলাল তালুকদার বলেন, সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ।দ্রুত সেতুটি নির্মাণের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে কালকিনি উপজেলা প্রকৌশলী মো. রেজাউল করিমের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © দেশ প্রকাশ ©
Theme Customized By Shakil IT Park