1. admin@dailygrambangla.com : admin :
মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:৪৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সোনারগাঁয়ে সবজি ব্যবসায়ীকে হত্যার হুমকি ও চাঁদা দাবীর অভিযোগে গ্রেফতার-১ বেড়ায় ডারবি সিগারেট সরবারাহকারি এক্সপ্রেস লিঃ এর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন চাষাড়ায় রেস্টু‌রেন্ট ম্যানাজারকে গু‌লি কর‌লো ভবন মা‌লিক, গ্রেপ্তার ২ অবশেষে পুলিশের জালে প্রাইম ডিস্ট্রিবিউশন গ্রুপের এমডি প্রতারক মামুন জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ সোনারগাঁয়ে সোহাগ বাহিনীর ক্যাডার মাহিনের নেতৃত্বে স্বামী-স্ত্রীর উপর হামলা সোনারগাঁয়ে হাতুড়ি পেটায় স্ত্রী হত্যাকারী স্বামী সাইদুর গ্রেফতার পবিত্র কুরআন শরীফ অবমাননার প্রতিবাদে সোনারগাঁয়ে বিক্ষোভ মিছিল সোনারগাঁয়ে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন জিন্নাহ-জাহাঙ্গীরের মতো হাইব্রিডদের কারণে আমরা ত্যাগী নেতারা লাঞ্ছিত: সাবেক ছাত্রলীগ নেতা খোকন

কুষ্টিয়ায় দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

  • আপডেট : সোমবার, ২ মে, ২০২২
  • ৭৮ বার পঠিত

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ঝাউদিয়া ইউনিয়নের আস্থানগর গ্রামে আধিপত্য বিস্তরকে কেন্দ্র করে সামাজিক দুই গ্রুপের সংঘর্ষে একই গ্রুপের চারজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ৮ জনের অবস্থা আশংকাজনক। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মুস্তাফিজুর রহমান রতন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
নিহতরা হলেন-আস্থানগর গ্রামের মৃত হাসেম আলীর ছেলে কাশেম (৫০), দাউদ মন্ডলের ছেলে লাল্টু মন্ডল(৩০), আবুল মালিথার ছেলে রহিম মালিথা(৫০) ও আফজাল মন্ডলের ছেলে মতিয়ার(৪০)। সোমবার বিকাল ৫টার দিকে ঝাউদিয়া ইউনিয়নের আস্থানগর গ্রামে আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি কেরামত উল্লাহ ও আওয়ামীলীগ সমর্থিত সাবেক মেম্বার ফজলু গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানার ঝাউদিয়া ইউনিয়নের আস্থানগর এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কেরামত ও ফজলু মন্ডল গ্রুপের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। তারই ধারাবাহিকতায় সোমবার বিকেলে কেরামত ও ফজলু মন্ডল গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে ফজলু মন্ডলের সমর্থক লাল্টু, মতিয়ার ও কাশেমসহ মোট চারজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন কয়েকজন। নিহতদের মরদেহ কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে রাখা হয়েছে।
কুষ্টিয়া সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অসম আখতারুজ্জামান মাসুম বলেন, ঝাউদিয়া এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে বিরাজমান সামাজিক দ্বন্দ্ব ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষেও ঘটনা ঘটেছে। দলীয় সংঘর্ষ নয় বলে তিনি দাবি করেন।
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মুস্তাফিজুর রহমান রতন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কেরামত ও ফজলু গ্রুপের মধ্যে কোন্দল চলে আসছিল। তারই ধারাবাহিকতায় বিকেলের দিকে সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অনেকে। তিনি আরও বলেন, এলাকায় পুলিশের অভিযান চলছে। সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © দেশ প্রকাশ ©
Theme Customized By Theme Park BD